করোনাভাইরাসের ভয়াবহতার কারণে অলিম্পিক হওয়ার ব্যাপারে অনিশ্চয়তা রয়েছে। তবে জাপানের প্রধানমন্ত্রী বলছেন, করোনার প্রকোপ আটকে এবারের অলিম্পিক আয়োজন করবেন তারা।

করোনাভাইরাসের ভয়াল থাবায় স্থবির হয়ে পড়েছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গন। ক্রিকেট, ফুটবল, টেনিসসহ বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের বেশিরভাগ খেলাধুলাতেই আঁচ পড়েছে এই ভাইরাসের। এই ভাইরাসের প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত, স্থগিত খেলাগুলো পুনরায় শুরু হওয়া নিয়ে রয়েছে শঙ্কা। শঙ্কার মুখে রয়েছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের সবচেয়ে বড় আসর অলিম্পিকও। এ বছর জাপানের টোকিওতে অলিম্পিক হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু করোনাভাইরাসের ঝুঁকির কারণে সেটি বাতিল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। যদিও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এখনো অলিম্পিক আয়োজন করার ব্যাপারে খুবই আশাবাদী। 

শুধু জাপান সরকারই নয় বরং আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটিও (ওআইসি) নির্ধারিত সময়ে অলিম্পিক আয়োজন করতে চায়। নয়তো বিভিন্ন স্পন্সরের সাথে করা বিশাল অঙ্কের চুক্তি টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না। এমনকি বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের সাথে সম্প্রচার স্বত্বের চুক্তিও বজায় রাখা যাবে না। ফলে বিশাল আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হতে হবে তাদের। তাই, জাপান সরকারের  সাথে আলোচনা করে অলিম্পিকের আয়োজন নিশ্চিত করতে চায় তারা।

জাপান করোনাভাইরাসের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ একটি দেশ। দেশটিতে এখন পর্যন্ত প্রায় ১৪২৩ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। কিন্তু জাপানের প্রধানমন্ত্রী প্রত্যাশা করেছেন এই ভাইরাসের সংক্রমণ তারা নিয়ন্ত্রনে আনতে পারবেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী অলিম্পিক আয়োজনেও আশাবাদী তিনি, "আশা করছি আমরা খুবই তাড়াতাড়ি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আটকে রাখতে পারব এবং কোনো ধরনের সমস্যা ছাড়াই আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী টোকিও অলিম্পিক আয়োজন করতে পারব।"

এদিকে করোনাভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে দর্শক উপস্থিতি ছাড়াই গত বৃ্হস্পতিবার গ্রিসে অলিম্পিকের মশাল প্রজ্বালন করা হয়েছে। তবে বিভিন্ন দেশের সরকার এখনো অলিম্পিক স্থগিত করার দাবি তুলছে। তাই, টোকিও অলিম্পিক আয়োজনের ব্যাপারে এখনো শঙ্কা থেকেই যায়।  


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা