বাংলাদেশে খেলতে আসা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফুটবলারদের মধ্যে সবচেয়ে হাইপ্রোফাইল ধরা হয় তারিক কাজীকে। বাবার দেশ বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করার জন্য তারিক ছেড়ে এসেছেন মাতৃভূমি ফিনল্যান্ডকে। এখন বাংলাদেশকে নিয়েই যত ভাবনা তার।

তার জন্ম ফিনল্যান্ডে। সেখানকার শীতল আবহাওয়ায় বেড়ে ওঠা তার। ৭০% বনাঞ্চলে ঘেরা দেশটির সবুজ প্রকৃতির মাঝে কেটেছে শৈশব, কৈশোর। ছোটবেলা থেকেই ফুটবলকে নাওয়া-খাওয়া হিসেবে নেওয়া সেই তরুণ ফিনল্যান্ড ছেড়েছেন এই ফুটবলের জন্যই। তবে নিজের মাতৃভূমি ত্যাগ করে এই ফুটবলার পাড়ি জমিয়েছেন নিজের পিতৃভূমি বাংলাদেশে। কারণ এখানেই গড়তে চান নিজের স্থায়ী ঠিকানা। 

বলছিলাম, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফুটবলার তারিক কাজীর কথা। বাংলাদেশে খেলতে আসা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফুটবলারদের মধ্যে সবচেয়ে হাইপ্রোফাইল ধরা হয় তারিক কাজীকে। কারণ, ইউরোপের কোন দেশের বয়সভিত্তিক মূল দলে খেলা এবং সেদেশের টপ লীগে খেলার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন কেউ এর আগে বাংলাদেশের হয়ে খেলতে আসেনি। তারিক সর্বশেষ মৌসুমে ফিনিশ ক্লাব ইলভেস টেম্পেরের হয়ে খেলেছেন। ইউরোপীয় ফুটবলের রঙিন ক্যারিয়ার ছেড়ে তিনি খেলতে এসেছেন ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশের ফুটবলে। উয়েফা ইউরোপা লীগের বাছাইপর্বে খেলার অভিজ্ঞতা থাকা এই ফুটবলারের সামনে ছিল উজ্জ্বল সম্ভাবনা। ফিনল্যান্ডের ক্লাব ইলভেস টেম্পেরের একাডেমীতে থাকাকালীন অন্যতম সেরা প্রতিভাবান ভাবা হতো তাকে। তার সে সময়কার একাডেমী সতীর্থের কয়েকজন এখন ইংলিশ ফুটবলের বিভিন্ন স্তরের ক্লাবে খেলছেন। হয়তো, তারিকের সামনেও সেই সুযোগ আসতো। কিন্তু আপাতত সেই সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়ে তারিক যোগ দিয়েছেন তার বাবার দেশের ক্লাব বসুন্ধরা কিংসে। ক্লাবটির সাথে ৪ বছরের দীর্ঘমেয়াদী চুক্তি হয়েছে তার।

এ বছরই ইউরোপের শ্রেষ্ঠত্বের আসর ইউরোতে খেলবে ফিনল্যান্ড। সেই ফিনল্যান্ডের হয়ে খেলার সুযোগ ছিল তারিকের। বয়সভিত্তিক পর্যায়ে ফিনল্যান্ডের বিভিন্ন দলে খেলেছেন তিনি। তাই এবার না হোক, নিকট ভবিষ্যতে ফিনল্যান্ডের জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ারও দারুণ সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে ৫৮তম স্থানে অবস্থান করা দেশটিকে এখন নিজের জন্য অতীত মনে করেন তারিক। তার ভাবনা এখন ফিনল্যান্ডের চেয়ে ১২৯ ধাপ পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশকে ঘিরেই, "আমি তো ফিনল্যান্ডে বয়সভিত্তিক অনুর্ধ্ব-১৬, ১৭, ১৮, ১৯ দলে খেলেছি। এখন ফিনল্যান্ড আমার অতীত। এখন আমার বর্তমান হচ্ছে বসুন্ধরা কিংস আর বাংলাদেশ ন্যাশনাল টিম।''

বসুন্ধরার হয়ে খেলছেন এবার তারিক কাজী

বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোচ জেমি ডেও নিয়মিত নজর রাখছেন এই প্রতিভাবান ডিফেন্ডারের উপর। বসুন্ধরা কিংসে কেমন ট্রেনিং করছেন তারিক? এদেশের আবহাওয়ার সাথে মানিয়ে নিয়ে ফিটনেসের কতটুকু উন্নতি করেছেন? এসব বিষয়ে খোঁজখবর রাখছেন জাতীয় দলের কোচ।

৭ বছর আগে ডেনমার্ক থেকে বাংলাদেশে এসে এখন জাতীয় দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন জামাল ভুঁইয়া। ২৯ বছর বয়সী সেই জামাল এখন বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফুটবলার। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ডেনমার্ক প্রবাসী এই ফুটবলারই তারিকের সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা, 'ও ডেনমার্কে খেলেছে। সে একটা আইকন বাংলাদেশের ফুটবলে। সবাই তো জামালকে চেনে। আমরা বিদেশ থেকে এসেছি। আমি জামালকে দেখেছি, সে যেমন এটা (বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করা) পেরেছে, আমিও পারবো।'

ডেনমার্ক থেকে আসার পর শুরুতে যে জিনিসটা সবচেয়ে বেশি ভুগিয়েছিল জামালকে, সেটা হলো এদেশের আবহাওয়া। ফিনল্যান্ড থেকে আসা তারিকের কাছেও বাংলাদেশের আবহাওয়াটা এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ, 'ফিনল্যান্ডের সাথে তুলনা করলে এখানের আবহাওয়াটাই চ্যালেঞ্জ। আমাদের ফিনল্যান্ডে তো এখন তুষারপাত হচ্ছে। আর এখানে প্রায় ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রা।' ফিনল্যান্ডে থাকলেও তারিক খুব ভালভাবেই বাংলা বুঝতে পারতেন। সেখানে তার বাবার কাছ থেকে বাংলায় অনেকগুলো শব্দও শিখেছেন। বর্তমান বাংলাদেশি সতীর্থদের কাছে শিখছেন আরো কিছু শব্দ। ডিবিসি নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে তারিক বলেন, 'ফিনল্যান্ডে বাবা বাংলায় বলছে (শিখিয়েছে)। তারপর এখানে প্লেয়ারদের সাথে আমি বাংলা শিখতেছি। প্রতিদিন এক না দুই ওয়ার্ড শিখতেছি। আমি তো প্রতিদিন এখন বাংলা বলি। আমার বন্ধুদের সাথে, কোচের সাথে একটু একটু বাংলা বলি।'

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে ইতিমধ্যে এক ম্যাচ খেলেছে বসুন্ধরা কিংস। বেঞ্চে থাকলেও মাঠে নামা হয়নি তারিক কাজীর। তাই বাংলাদেশের মাঠে তারিকের নৈপূণ্য দেখতে আগ্রহী দর্শকদের অপেক্ষাটা আরেকটু দীর্ঘায়িত হয়েছেই বৈকি!


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা