ইয়র্কারে আগের মতো আত্মবিশ্বাস পান না, স্লোয়ারেও ধরেছে জং। বোলিংয়ে নিজের অস্ত্রগুলোকে আরো শাণিত করতে চান মুস্তাফিজ।

করোনাভাইরাসের কারণে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগ স্থগিত। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত লীগ আবারো শুরু হওয়া নিয়ে রয়েছে শঙ্কা। বেশিরভাগ ক্রিকেটাররা তাই হোটেলে বন্ধী হয়ে সময় কাটাচ্ছেন। আবার কেউ কেউ চলে গেছেন নিজ বাড়িতেও। তবে কয়েকজন ক্রিকেটার একটু ব্যতিক্রম। ফিটনেস আর ব্যক্তিগত স্কিল নিয়ে কাজ করছেন তারা। মুস্তাফিজুর রহমান তাদের একজন। নিজের সেই সোনালী সময়গুলো তিনি পেরিয়ে এসেছেন। প্রতিপক্ষ শিবিরে আতঙ্ক ছড়ানোর মতো ফর্ম এখন আর তার নেই। তবে খুব দ্রুতই নিজের পুরোনো রুপে ফিরতে ব্যাকুল এই পেসার। 

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আবির্ভাবের পর থেকেই কাটার দিয়ে নাস্তানাবুদ করেছেন প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের। পাশাপাশি দারুণ সব ইয়র্কার দিয়ে মুস্তাফিজ ত্রাস ছড়িয়েছেন ২২ গজে। এমনকি ইয়র্কার দিয়ে প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানকে ভূপাতিত করার ইতিহাসও রয়েছে মুস্তাফিজের। কিন্তু এখন আগের মতো তেমন ইয়র্কার করতে দেখা যায় না এই বাঁহাতি পেসারকে। ইয়র্কার করতে নাকি এখন আত্মবিশ্বাস পান না বলে জানালেন এই পেসার, "আমার মনে হয়, কোন একটা জায়গায় কিছু একটা...(সমস্যা হচ্ছে)। এখন আবার ভালো যাচ্ছে। আসলে ওইভাবে আত্মবিশ্বাস পাচ্ছি না। আরও অনুশীলন করা লাগবে। সব কিছু ঠিক আছে, আমার মনে হয় হাতটা হালকা একটু ইয়ে হয়েছে...। আমি দু-একটা জিনিস চেষ্টা করছি। ইয়র্কারটায় আমি আগের মত আত্মবিশ্বাস পাই না, চেষ্টা করছি, কী করলে ভাল হবে। কাটারটা তো আছে, আর কাজ করছি বল ভেতরে ঢোকানো নিয়ে।"

মুস্তাফিজের আরেকটা অস্ত্র হলো স্লোয়ার। এ অস্ত্রটাতেও যেনো জঙ ধরেছে তার। এখন স্লোয়ারের জন্য নাকি অনুর্ধ্ব-১৯ দলের এক পেসারের কাছ থেকে পরামর্শ নিচ্ছেন মুস্তাফিজ। তাতে নাকি কাজও হচ্ছে বলে জানালেন তিনি, "নাইনটিনের (অনুর্ধ্ব-১৯) এক ছেলের কাছেও একটি টিপস পাইছি। স্লোয়ার বল নিয়ে বলেছিল, সাইড থেকে না করে ওপর থেকে করলে ভালো। আমিও দেখলাম তার পরামর্শ নিয়ে ভালো লাগছে।"

বাজে পারফরম্যান্সের জন্য মুস্তাফিজকে বাদ দেওয়া হয়েছে টেস্ট দল থেকে। এমনকি লাল বলের বোর্ড চুক্তিতেও রাখা হয়নি তাকে। তবে বাদ পড়ার এই দিকটাকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন মুস্তাফিজ, "আমার জন্য ভালো (বাদ পড়া), আমি বুঝব আমার উন্নতি করতে হবে, বুঝব যে এতটুকু দিয়ে থাকার যোগ্য নই আমি।"


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা