হার্নান বার্কোসকে নিয়ে কথা উঠলেই আলোচনায় থাকেন মেসি। আলবেসেলিস্তাদের জার্সিতে দুজনেরই একসাথে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। মেসির মতো বিশ্বসেরা না হতে না পারলেও বার্কোস অন্তত বাংলাদেশের সেরা হতে চান।

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা নিয়ে বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীদের মাঝে রয়েছে প্রচুর উন্মাদনা। কিন্তু কখনো ব্রাজিল কিংবা আর্জেন্টিনা জাতীয় দলে খেলে আসা কোনো ফুটবলারকে বাংলাদেশি ক্লাবের হয়ে খেলতে দেখেনি তারা। তাদের সেই আক্ষেপটাই এবার ঘুচিয়ে দিল বসুন্ধরা কিংস। তাদের কল্যাণেই বাংলাদেশ দেখলো ঢাকার মাঠে বাংলাদেশি ক্লাবের জার্সি গায়ে আর্জেন্টিনা জাতীয় দলে খেলে আসা এক ফুটবলারকে। জলদস্যুর মতো চোখে বাম হাত দিয়ে, মুষ্টিবদ্ধ ডান হাত উপরে তুলে গোল উদযাপন করা এই ফুটবলারের নাম হার্নান বার্কোস। বসুন্ধরা কিংসের জার্সিতে প্রথম ম্যাচেই ৪ গোল করে তিনি রাঙিয়েছেন তার অভিষেক। 

মেসির সতীর্থ বলে বার্কোসকে নিয়ে আগে থেকেই উন্মাদনা ছিল। বসুন্ধরা কিংসের হয়ে অভিষেকে ৪ গোল করার পর সেটা বেড়ে গেছে আরো কয়েকগুণ। বিশ্বজুড়ে মেসি যেমন শ্রেষ্ঠত্বের ছাপ রেখে চলেছেন, বার্কোসও তেমন বাংলাদেশে নিজের শ্রেষ্ঠত্বের ছাপ রাখতে চান, "প্রথম ম্যাচেই যে ৪ গোল করবো, তা ভাবিনি। মেসি যেমন পুরো বিশ্বের তারকা, আমিও তেমন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় তারকা হতে চাই।"

অভিষেকেই বাজিমাত করেছেন বার্কোস

বার্কোসকে নিয়ে কথা উঠলেই আলোচনায় থাকেন মেসি। থাকাটাই স্বাভাবিক কারন একসময় তিনি আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে খেলেছেন মেসির সাথে। তাই, বসুন্ধরা কিংসের সমর্থকদের প্রত্যাশার চাপও আছে তার উপর। কিন্তু সেই চাপটাই তিনি মাঠে উপভোগ করছেন, "এখানে শুরুতে চাপেই ছিলাম। মেসির সাথে খেলেছি বলে হয়তো সবার প্রত্যাশা বেশি। মাঠে নেমেছি সবকিছু ভুলে গিয়ে। চাপটাকে বরং উপভোগ করছি মাঠে।"

এএফসি কাপে খেললেও বার্কোস আপাতত খেলতে পারছেন না লীগে। আর সেখানেই তার ক্লাব বসুন্ধরা কিংস তার মতো একজন গোলস্কোরারের অভাবে ভুগছে। এমনকি অপেক্ষাকৃত দুর্বল দলগুলোর বিপক্ষেও হোঁচট খাচ্ছে তার সতীর্থরা। এ নিয়ে নিজের ১৬ বছরের অভিজ্ঞতা থেকে সতীর্থদের উদ্দেশ্যে পরামর্শ দিলেন বার্কোস, "গোলপোস্টের সামনে মাথা ঠান্ডা রাখতে হবে। সতীর্থের সেটাই বলেছি। দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়ার সক্ষমতা থাকতে হবে। লীগে বড় দল আর ছোট দলের পার্থক্য নেই বললেই চলে।"


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা