স্বামী কোবি ব্রায়ান্ট এবং কন্যা জিয়ান্নার মৃত্যুর জন্য হেলিকপ্টার কোম্পানিকে দায়ী করছেন কোবির স্ত্রী ভ্যানেসা ব্রায়ান্ট। সোমবার লস অ্যাঞ্জেলসের একটি সুপ্রিম কোর্টে তাদের বিরুদ্ধে মামলাও করেছেন তিনি।

গত ২৬ জানুয়ারি হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করেন আমেরিকান বাস্কেটবল তারকা কোবি ব্রায়ান্ট। আজ প্রায় এক মাস হতে চললো। অথচ এখনো কোবির এমন আকস্মিক মৃত্যু যেন বিশ্বাসই হতে চায় না। 

সেই ভয়ানক দুর্ঘটনায় ৪১ বছর বয়সী কোবির সাথে মারা গেছে তার ১৩ বছরের কন্যা জিয়ান্নাও। সেদিন ৮ জন যাত্রী বহন করে দুর্ঘটনার শিকার হওয়া সেই হেলিকপ্টারটি ছিল আমেরিকান কোম্পানি 'আইল্যান্ড হেলিকপ্টারস'-এর। ঘটনার ৪ দিন পর থেকেই কোম্পানিটি নিজেদের সব সেবা বন্ধ করে দিয়েছে। কোবির মৃত্যুর শোক কাটিয়ে ওঠতেই অনির্দিষ্ট কালের জন্য সব কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে তারা। তবে কোবির স্ত্রী ভ্যানেসা ব্রায়ান্ট এখন দুর্ঘটনাটির জন্য দায়ী করছে কোম্পানিটিকেই। এমনকি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে লজ অ্যাঞ্জেলসের একটি সুপ্রিম কোর্টে মামলাও করেছেন তিনি। সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃপক্ষই বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। 

সোমবার দায়ের করা এই মামলায় কোবি স্ত্রীর অভিযোগ, হেলিকপ্টারটি যাত্রা শুরুর আগে আবহাওয়ার ডেটা মূল্যায়ন করেননি কর্তৃপক্ষ। তাদের অবহেলার কারণেই এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনার সম্মুখীন হতে হয়েছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছিলেন, ঘন কুয়াশা এবং মেঘের কারণে পাইলটের পক্ষে উচ্চতা নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি। তবে জাতীয় নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, যাত্রা শুরুর আগে কোন অভ্যন্তরীণ ত্রুটি ছিল না হেলিকপ্টারটির। এমনকি দুর্ঘটনার সময়েও দুটি ইঞ্জিনই সচল ছিল এটির। মামলার তদন্তের স্বার্থে ঘটনাস্থলে থাকা মানুষদের ছবি এবং ভিডিওকে বিবেচনা করা হবে। মামলার একদিন পেরিয়ে গেলেও এখনো কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি 'আইল্যান্ড হেলিকপ্টারস' প্রতিষ্ঠানটি। তবে সত্যিই যদি দুর্ঘটনার পেছনে তাদের কোনো অবহেলার প্রমাণ পাওয়া যায়, তাহলে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে তাদেরকে।

কোবি ও তার কন্যার মৃত্যুর পর বাকি সন্তানদের নিয়ে কোনোরকম দিন কাটছে ভ্যানেসার। একটি দুর্ঘটনা সুন্দর সাজানো সংসারটাকে অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিয়েছে। যদি এই মামলার সুষ্ঠু বিচার হয়, তবে শোকের মাঝেও হয়তো কিছুটা সান্ত্বনা মিলবে ভ্যানেসার।

তথ্যসূত্র- বিবিসি


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা