নিজের ব্যক্তিগত হেলিকপ্টারে চড়েছিলেন, মাঝ আকাশে ক্র‍্যাশ করেছে সেটা। কোবি ব্রায়ান্ট সহ হেলিকপ্টারের পাঁচ আরোহীর সবাই ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন! 

বাস্কেটবলের কিংবদন্তী ছিলেন তিনি, প্রফেশনাল ক্যারিয়ারে লস অ্যাঞ্জেলস লেকারের হয়ে পাঁচটা এনবিএ চ্যাম্পিয়নশীপ জিতেছেন। অলিম্পিকের সোনার মেডেলটা গলায় তুলেছেন দুইবার, নিজের সময়ের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড় ছিলেন। ২০১৬ সালে প্রফেশনাল ক্যারিয়ারের ইতি টানা কোবি ব্রায়ান্টের জীবনটা যে এত জলদি শেষ হয়ে যাবে, সেটা কে জানতো! নিজের ব্যক্তিগত হেলিকপ্টারে চড়েছিলেন, মাঝ আকাশে ক্র‍্যাশ করেছে সেটা। কোবি ব্রায়ান্ট সহ হেলিকপ্টারের পাঁচ আরোহীর সবাই ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন! 

উইকিপিডিয়ার প্রোফাইলে মৃত্যুর তারিখটা যুক্ত হয়ে গেছে, ছাব্বিশে জানুয়ারী জ্বলজ্বল করছে সেখানে। এমন কিছু কি কেউ আশঙ্কা করতে পেরেছিল কখনও? তরুণ একটা প্রাণ কেন এভাবে হারিয়ে যাবে? হাসি মুখটা কেন বিলীন হয়ে যাবে অন্য ভূবনে? এমন নির্মম মৃত্যু কি মেনে নেয়া যায়? দুনিয়া জুড়ে লাখো ভক্ত ছিল তার, তিনি বাস্কেট বল গ্রাউন্ডে নামলে করতালির বন্যা বয়ে যেতো, সেই মানুষগুলো আজ রাতে ঘুমুবে কি করে? 

বাবা জো ব্রায়ান্ট পেশাদার বাস্কেটবল খেলোয়াড় ছিলেন, তার একমাত্র ছেলেটাও সেই পথে হেঁটেছিল। মাত্র তিন বছর বয়সে কোবি বাবার বাস্কেটবলটা দিয়েই খেলা শুরু করেছিলেন। স্কুল দল আর রাজ্য দলের হয়ে প্রতিভার ঝলক দেখিয়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন লস অ্যাঞ্জেলস লেকারসে। প্লেয়ার ড্রাফটে ফিলাডেলফিয়া থেকে আসা কোবি ব্রায়ান্টকে তারা নিয়েছিল তার উচ্চতা আর দারুণ ক্ষিপ্রতা দেখে। 

হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হওয়ার স্থানে জ্বলছে আগুন

সেই লেকারসের সঙ্গেই পেশাদার ক্যারিয়ারের পুরোটা সময় কাটিয়েছেন ব্রায়ান্ট। নামের পাশে খ্যাতি যুক্ত হয়েছে, টাকা এসেছে, বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড় হয়েছেন, তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছে মিডিয়া। অন্যান্য দল থেকে প্রস্তাব এসেছে, বড় বড় অঙ্কের। কিন্ত লোভ তাকে টলাতে পারেনি, যে ক্লাবটা তাকে প্রথম ঠাঁই দিয়েছিল, তাদের ঘর ভেঙে তিনি অন্য কোথাও যাননি। ২০১৬ সালে পেশাদার ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচটাও তিনি খেলেছেন লস অ্যাঞ্জেলস লেকারের হয়েই। 

অলিম্পিকে দুটো স্বর্ণপদক তার নামের পাশে, দলগত ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন আমেরিকাকে। সাড়ে ছয় ফুট উচ্চতার শরীরটায় মোষের জোর ছিল, লাফিয়ে উঠতে পারতেন অনেকটা উঁচুতে, ক্ষীপ্রতা ছিল বুনো চিতার মতোই! সেই কোবি ব্রায়ান্ট এমন আচমকা হারাবেন, সেটা মানতেই পারছি না কোনভাবে। এমন রাতগুলো কেন আসে? দুঃস্বপ্নের এই প্রহরগুলোর মুখোমুখি কেন হতে হয় আমাদের? 


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা