করোনাভাইরাসের চলমান পরিস্থিতির কারণে পরিবার থেকে দ্রুত মায়ের লাশ দাফনের সিদ্ধান্ত হয়। ফলে ঢাকা থেকে কুষ্টিয়া গিয়ে মায়ের জানাজায় অংশ নেওয়া হয়নি হাবিবুলের।

২০১৮ সালেই বাবা কাজী মোতাহার উদ্দিনকে হারিয়েছেন হাবিবুল বাশার। এর বছরখানেক আগে তার মেঝো ভাই, এসময়কার ফুটবলার একরামুল বাশার মারা গেছেন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে। হাবিবুলের হারানোর মিছিলে এবার যোগ দিলেন তার মা। আজ দুপুর দুইটায় বার্ধক্যজনিত রোগে জীবন নদীর ওপারে পাড়ি জমিয়েছেন সাবেক এই ক্রিকেটারের মা রিজিয়া বেগম (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাহি রাজিউন)। কিন্তু মায়ের দাফন কাজে অংশ নিতে পারেননি তিনি। 

করোনাভাইরাসের চলমান পরিস্থিতির কারণে সময়টা মোটেও ভাল যাচ্ছে না। দুইদিন ধরে দেশ কার্যত লকডাউন। সবাইকে থাকতে হচ্ছে গৃহবন্দী হয়ে। এমন অবস্থায় মায়ের মৃত্যুর সংবাদ আসে হাবিবুলের কাছে। তিনি তখন ঢাকায়। খবর পেয়েই রওনা হতে চেয়েছিলেন কুষ্টিয়ার উদ্দেশ্যে। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে পরিবার থেকে দ্রুত দাফন কাজ সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত হয়। তাই, হাবিবুলসহ দুরের আত্মীয়দের আসতে নিরুৎসাহিত করা হয়। যার ফলে, শেষবারের মতো নিজের রত্নগর্ভা মায়ের মুখ দেখার ভাগ্য হয়নি হাবিবুলের। 

মাকে দেখতে না পেরে কান্নায় ভেঙে পড়া হাবিবুল জানিয়েছেন, 'বাড়ির সবাই বলল, দ্রুত দাফন করবে, এই পরিস্থিতিতে ঢাকা থেকে আসার দরকার নেই। কদিন আগে মাকে দেখে এসেছি। বুঝিনি ওটাই হবে আমার শেষ দেখা, এত কষ্ট লাগছে...’ কান্নার কারণে বাকী কথা আর শেষ করতে পারলেন না। তবে তার ভাই, ক্রিকেট কোচ কাজী এমদাদুল বাশার জানিয়েছেন, আজ মাগরিবের পরে পৌর কবরস্থানে তার মায়ের লাশ দাফন করা হয়েছে। 


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা